২৭ নভেম্বর ,শুক্রবার, ২০২০

  • দিনপ্রতিদিন নিউজ ডেস্ক

  • ২৯ অক্টোবর ,বৃহস্পতিবার, ২০২০

রক্তে কলেস্টেরল : ওষুধ কতদিন খাবেন?


রক্তে কলেস্টেরল : ওষুধ কতদিন খাবেন?

রক্তে কলেস্টেরল : ওষুধ কতদিন খাবেন?


শরীর গঠনে অন্যান্য উপাদানের মতো চর্বি একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। কোটি কোটি দেহকোষের প্রাচীর, বহুসংখ্যক হরমোনসহ অসংখ্য শরীরবৃত্তীয় ক্রিয়া-বিক্রিয়ার অত্যাবশ্যকীয় উপাদান হলো কলেস্টেরল। প্রাণীর মস্তিষ্কের প্রায় পুরোটাই কলেস্টেরল দিয়ে তৈরি। তাহলে কলেস্টেরল খারাপ হবে কেন?

বিষয়টি খারাপ বা ভালোর নয়। প্রতিটি জিনিসেরই একটি মাত্রা থাকে। মাত্রা ছাড়িয়ে গেলেই সমস্যা দেখা দেয়। আমাদের কলেস্টেরল মাত্রা জানতে হলে অন্তত ১০ ঘণ্টা খালি পেটে একটি লিপিড প্রোফাইল করা দরকার। লিপিড প্রোফাইলেtotal cholesterols, high density lipoprotein- HDL, low density lipoprotein-LDL,  এবং Triglycerides এর বিস্তৃত বিবরণ থাকে। এই চারটি উপাদানের আনুপাতিক উপস্থিতি পরবর্তী চিকিৎসা নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। অনেকে শুধু total cholesterolsএবং triglycerides পরীক্ষা করার উপদেশ দিয়ে থাকেন। তাতে করে HDL এবং LDLএর পরিমাণ সুনির্দিষ্ট করে বোঝা সম্ভব হয় না। সবার উচিত বয়স ৩০ হলে অথবা পরিবারে যদি অল্প বয়সে কেউ হৃদরোগ বা স্ট্রোকে আক্রান্ত হয় তাহলে লিপিড প্রোফাইল পরীক্ষা করা।

ভালো বনাম খারাপ কলেস্টেরল : রক্তনালির দেয়ালে জীবন্ত কোষের অবিরাম ভাঙাগড়া চলতে থাকে। সুস্থ মানুষের এই ভাঙাগড়ার মধ্যে একটি পারফেক্ট ব্যালেন্স থাকে। কিন্তু যাদের ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, উচ্চ কলেস্টেরল আছে, যারা ধূমপান বা তামাকজাত দ্রব্য গ্রহণ করেন, স্থূল শরীর ব্যায়ামহীন কাটান তাদের রক্তনালির জীবন্ত কোষের ভাঙাগড়ার প্রক্রিয়াটি ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। কোষের এই ভাঙাগড়ার প্রক্রিয়ায় HDL  কলেস্টেরল রক্তনালি রক্ষায় পজিটিভ ভূমিকা পালন করে। এজন্য একে গুড কলেস্টেরল বলা হয়ে থাকে। আর LDL কলেস্টেরল বিশেষ করে পরিবর্তিত oxidized LDL রক্তনালির দেয়ালে এক ধরনের প্রদাহ সৃষ্টি করে। ধীরে ধীরে এই প্রদাহের ফলে রক্তনালির গাত্রে চর্বির দলা Plaque গড়ে ওঠে রক্তনাফলকে সরু করে রক্তের প্রবাহকে বাধাগ্রস্ত করে। সাধারণ মানুষ এটাকে ব্লক বলে থাকেন। কোনো ব্লক যখন রক্তনালির কমপক্ষে ৭০% ভাগ লুমেন সরু করে দেয় তখন অল্প পরিশ্রমে বুকে ব্যথা, চাপ, শ্বাসকষ্ট বা ধড়ফড় শুরু হয়ে যায়। চিকিৎসার ভাষায় এটাকে বলে অ্যানজাইনা। দেখা যাচ্ছে, হার্ট ব্লক বা ব্রেন স্ট্রোক সৃষ্টিতে কলেস্টেরলের ভূমিকা কেন্দ্রীয়। যার যত গুড কলেস্টেরল বেশি থাকবে এবং কলেস্টেরল কম থাকবে সে তত নিরাপদ।

কেন এই ভারসাম্যহীন কলেস্টেরল : আমরা যখন রোগীকে বলি যে, গরু খাসির মাংস এড়িয়ে চলুন, তখন অনেক রোগী প্রশ্ন করেন, ‘কেন স্যার, গরু তো নিজে ঘাস খায়, তাহলে তার মাংসে এত চর্বি কীভাবে হয়?’ কথা সত্য। গরু ঘাস খায়। তবে গরুর শারীরিক গঠন ভিন্ন, তার ফিজিওলজি ভিন্ন। আর শরীরের চর্বি তৈরির কারখানা হলো লিভার। যার লিভার চর্বি তৈরির জন্য যত মুখিয়ে থাকে সে যতই শাকসবজি ঘাস খাক না কেন লিভার তার কাজ চালিয়ে যাবেই। এটা হয় যখন শরীরের মেটাবলিজম পাল্টে যায়। বিশেষ করে ডায়াবেটিস, থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতি, অ্যালকোহল পান, বাড়তি ওজন, হাঁটাচলা না করা ইত্যাদি ব্যাপারগুলো উপস্থিত থাকে। এসব কারণে লিভারের কোষে রিসেপ্টর সমস্যা দেখা দেয়। ফলে অতিরিক্ত মন্দ কলেস্টেরল রক্তে ভাসতে থাকে। বিভিন্ন অঙ্গে বিশেষ করে হার্ট ও ব্রেনের রক্তনালির দেয়ালে চর্বির দলা জমে জমে ব্লক তৈরি করতে থাকে।

প্রতিরোধ : যেসব কারণে কলেস্টেরল মেটাবলিজম ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে সেগুলোর প্রতিকার করতে হবে। ডায়াবেটিসকে পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে।  ধূমপান ও অ্যালকোহল বর্জন করতে হবে। ওজন কমাতে হবে। প্রয়োজনে চর্বি কমাতে নিয়মিত statin  জাতীয় ওষুধ খেতে হবে। ডায়াবেটিস যাদের আছে তাদের বয়স ৪০ হলে সারা জীবনের মতো statin  খেতে হবে। ডায়াবেটিসের ওষুধ যেমন সারা জীবন খেতে হয় তেমনি চর্বির ওষুধও সারা জীবন খেতে হবে। অস্বাভাবিক পরিস্থিতি ছাড়া statinকখনো বন্ধ করা যাবে না। অনেকে চর্বির মাত্রা স্বাভাবিক হলে ওষুধ বন্ধ করে দেন। এটা একটি ভুল ধারণা এবং অবৈজ্ঞানিক সিদ্ধান্ত। ডায়াবেটিসের ওষুধ বন্ধ করলে রক্তের সুগার যেমন বেড়ে যায়, তেমনি কলেস্টেরলের ওষুধ বন্ধ করলে তা বাড়বেই।

লক্ষ্যমাত্রা কত : গুড কলেস্টেরল (HDL) পুরুষের ক্ষেত্রে ৪০ মিলিগ্রামের ওপরে এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে ৫০ মিলিগ্রামের ওপরে থাকতে হবে। মন্দ কলেস্টেরলের (LDL) মাত্রা সুস্থ মানুষের জন্য ১৩০ থেকে ১৬০ মিলিগ্রামের মধ্যে থাকতে হবে। যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের ক্ষেত্রে ১০০-এর মধ্যে রাখা নিরাপদ। আর যাদের ইতিমধ্যে হার্টে ব্লক ধরা পড়েছে বা ব্রেন স্ট্রোক অথবা পায়ের রক্তনালিতে ব্লক ধরা পড়েছে তাদের ক্ষেত্রে LDL-এর মাত্রা ৭০ মিলিগ্রামের নিচে রাখতে হবে। Triglycerides এর মাত্রা ২০০ মিলিগ্রামের নিচে ভালো।

লেখক : সিনিয়র কার্ডিওলজিস্ট, ল্যাবএইড কার্ডিয়াক হসপিটাল, ধানমন্ডি, ঢাকা।


  • উৎসর্গঃ প্রয়াত সোহেল পারভেজ ভাই (ভুয়াপুর, টাঙ্গাইল), প্রয়াত শরিফুল ইসলাম শাওন (কোলাহা, ঘাটাইল, টাঙ্গাইল)
  • প্রতিষ্ঠাতা উপদেষ্টাঃ মামুন মিয়া ।
  • সম্মানিত উপদেষ্টা মণ্ডলীঃ মনিরুজ্জামান খান মনির (সিঙ্গাপুর/ হেনা গ্লোবাল), আজহারুল ইসলাম (সিঙ্গাপুর/ এ টি এন ট্রাভেল),শওকত হোসেন তারেক, হেলাল উদ্দিন সিকদার, এনামুল করিম সুজন, রনক ইকরাম, আহসান কবির (কণ্ঠ শিল্পি) ।
  • বিশেষ কৃতজ্ঞতাঃ সামসাদ হসাইন রোজেন ।
  • কৃতজ্ঞতাঃ এ কে এম কামরুজ্জামান ভাই (ভিভিধ হলিডেজ) আতাউল হক, আতাউর রহমান মিন্টু, মেহেদি হাসান রফিক, রায়হান ফ্লেমিং (কণ্ঠ শিল্পি), প্রদীপ্ত বাপ্পি (কণ্ঠ শিল্পি), মোঃ গাজী নাজমুল নীরব, আলামগির হোসেন (বেরাইদ)।
  • আইন উপদেষ্টাঃ এড মোঃ রফিকুল ইসলাম।
  • প্রধান সম্পাদকঃ রহিম শাহ্‌।
  • প্রধান নির্বাহী সম্পাদকঃ সামছুল আরেফিন সোহেল ।
  • সম্পাদকঃ মঈন মুরসালিন ।
  • প্রকাশক এবং প্রধান নির্বাহীঃ স্বপন মিয়া ।
  • প্রধান কার্যনির্বাহীঃ সৈয়দ আবু তাহের (আয়রন) ।
  • হেড অফ বিজনেস অ্যান্ড প্লানিংঃ মুহাম্মাদ আব্দুল্লাহ খান মাসুম ।
  • হেড অফ কমিউনিকেশনঃ 
  • হেড অফ মার্কেটিংঃ 
  • ফিচার সম্পাদকঃ 
  • বিশেষ বিভাগীয় প্রতিনিধি (ঢাকা)ঃ সৈয়দ সরোয়ার সাদী (রাজু) ।
  • বার্তা সম্পাদকঃ রশিদ নিউটন ।
  • ক্রিয়েটিভ আর্ট ডিরেক্টরঃ মোঃ গাজী নাজমুল নীরব ।
  • সিটিওঃ 
  • বিভাগীয় প্রধানঃ গোলাম মোস্তফা তালুকদার (ঢাকা), ইয়াসিন (চট্টগ্রাম) ।
  • ঢাকা রিপোর্টারঃ ।
রক্তে কলেস্টেরল : ওষুধ কতদিন খাবেন?
‘সন্ত্রাস নয়, সুন্দর একটা ধর্ম ইসলাম’ - পগবা
মহাকাশ থেকে ভোট দিলেন মহাকাশচারী কেট রুবিনস
চলে গেলেন প্রখ্যাত গীতিকবি আবুল ওমরাহ মুহম্মদ ফখরুদ্দিন
ঘরে বসেই ব্যাংকিং
‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’
ঢাবি শিক্ষক জিয়া রহমানের বিরুদ্ধে মামলা
স্যামসাং গ্রুপের চেয়ারম্যান মারা গেছেন
চলে গেলেন প্রবীণ আইনজীবী রফিক-উল হক
পাপিয়া দম্পতির ২৭ বছরের জেল
অবশেষে কার্যকর হতে যাচ্ছে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড
পদত্যাগ করলেন দুই অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল
নোয়াখালীর সেই গৃহবধূকে আগে একাধিকবার ধর্ষণ করেছিল দেলোয়ার
আবাসিক হোটেলে নিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ
পুত্রবধূকে ধর্ষণ
ধর্ষণ !
কোন দেশে ধর্ষণের কী সাজা
নারী সহকর্মীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়ানোর অভিযোগ ওসি আবু নাসের রায়হানের
রাজনীতি করেও দেশ ও জাতিকে কিছু দেওয়া যায়
আমি আর চুপ থাকতে পারছি না : সাকিব
প্রিয়াঙ্কা গান্ধী আটক
জিম্বাবুয়েকে বিদায় করে দিলো আইসিসি
অবশেষে বিশ্বকাপজয়ী কোচ পেলেনে সাকিবরা
বিশ্বকাপের সেরা ১০ মুহূর্তের তালিকায় ৪র্থ স্থানে সাকিব
যেসব মায়েরা নিজ সন্তান হত্যা করেন
রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে যা বললেন মিন্নি
অ্যামাজনে বাংলাদেশের পতাকার আদলে অন্তর্বাস
‘নয়নের বাড়িতে বসেই স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মিন্নি’
রিফাতকে 'একটু টাইট' দিতে চেয়েছিল মিন্নি!
যে কারণে হঠাৎ আলোচনায় নয়ন বন্ডের মা
এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ, পাশের হার ৭৩.৯৩
প্রধান সাক্ষী থেকে যেভাবে আসামি হলেন মিন্নি
এরশাদের সুসময়ের সেই ঘনিষ্ঠজনরা এখন কে কোথায়?
ফাইনালের সেই 'বিতর্কিত থ্রো' নিয়ে যে ব্যাখ্যা দিল আইসিসি
রোহিঙ্গাদের অবশ্যই ফিরিয়ে নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
দেখে নিন আইসিসির বিশ্বকাপ একাদশ
বাউন্ডারির সংখ্যা সমান হলে কি হত দেখে নিন
ক্রিকেট বিশ্বের নতুন চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড
কত কোটি টাকার সম্পদ রেখে গেলেন এরশাদ?
মিন্নির বাবা দিলেন নতুন তথ্য, রহস্য আরও বেড়েছে!
তোমার কি বন্ধু মন খারাপ?
শ্রাবন্তী বাংলাদেশে শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে যা বললেন
ছবি তোলা ও বাঘ সংরক্ষণ
পবিত্র কোরআন ও আহলাল বাইতের প্রেমবন্ধন
লাউ চাষ
চুলে ফুলের ছোঁয়া
মনোনয়নদৌড়ে পিছিয়ে নেই ‘তারকারা’ ও...
খোলামেলা পোশাকে ‘নির্লজ্জ’ সোনাক্ষী!
গ্রেপ্তার পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলস
সুগন্ধি গাছ কারিপাতা
বাগদানের আংটি ফেরত চেয়ে আদালতে মামলা!
শ্রাবন্তীর অজানা ১০ খবর
আমার বয়স ৪৬ নয় : জয়া
চা পাতা ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাবে
পাঁচ লড়াকু মেয়ের গল্প ‘ক্রিসক্রস’
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ টিভি দেখার সময়
ঘরেই সংরক্ষণ করুন পাকা আম
মোবাইল নাম্বার দিয়ে কারো পরিচয় বের করবেন যেভাবে
বেলি ফুল চাষের পদ্ধতি
জাস্টিন বিবারের বাগদান

সব খবর